বনধ ও এন আর সির বিরোধ করলেন শাসক দলের নেতৃবৃন্দরা

44

নিউজসুপার : -ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস অব্যাহত সমগ্র ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে।
শ্যামনগর ফিদার রোডে ইটবৃষ্টি হয় সাংসদ অর্জুন সিংয়ের গাড়ির ওপর জখম হন সাংসদ নিজেও।
এরূপ ঘটনার পরোতপরই ভারতীয় জনতা পার্টির ডাকে ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে ১২ ঘন্টা বনধ ডাকা হয়।
অপরদিকে শাসকদলও তীব্র বিরোধীতা করে এই বনধের।
বিভিন্ন এলাকায় বনধকে কেন্দ্র করে চলে বিক্ষিপ্ত ঘটনা।
নৈহাটিতে ওল্ড রিসার্ভেশন টিকিট কাউন্টারের সামনে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে একটি বিরোধ জমায়েতের আয়োজন করা হয়।
উক্ত জমায়েতে মূল বক্তা রূপে ছিলেন নৈহাটি বিধায়ক পার্থ ভৌমিক,তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ও অবজার্ভর সুবোধ অধিকারী,নৈহাটি পুরসভার চেয়ারম্যান অশোক চ্যাটার্জী ছিলেন সনৎ দে সহ প্রমুখ।
মূলত এই জমায়েত আলোচনা সভাটি বনধ ও এন আর সি কে কেন্দ্রীভূত করে করা হয়।
সুবোধ বাবু তার বক্তব্যে স্পষ্টত জানিয়ে দেন “আমরা কখনোই সাধারণ মানুষের কর্মকে বিঘ্নিত করে এই ধরনের বনধকে সমর্থন করি না।
অপরদিকে এন আর সির বিষয়ে সুবোধ বাবু জানান আমাদের তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
থাকাকালীন বাংলায় এন আর সি কোনোভাবেই সফল হতে দেব না”।
বিধায়ক পার্থ ভৌমিক তার বক্তব্যের মধ্যে বনধের জন্য সাধারণ মানুষের যে হয়রানি হতে হয়েছে তসর জন্য সকলের কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করেন।
এরই পাশাপাশি অশোক চ্যাটার্জী সহ সনৎ দে তারা প্রত্যেকেই এই আলোচনা সভায় ” কারো প্রতি জোর করে দোকান বন্ধ করে দেওয়া ,গেরুয়া বাহিনী বাইক নিয়ে রীতিমতো সন্ত্রাস চালিয়েছে বলেও তারা দাবি করেন।
যদিও গেরুয়া শিবির এ সকল কিছু মানতে নারাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

5 × 4 =